সীমান্তে মসজিদ নির্মাণ কাজে বিএসএফের বাঁধা

তন্ময় আহমেদ নয়ন, লালমনিরহাট: লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার বড়খাতা দোলাপাড়া সীমান্তে আন্তর্জাতিক সীমান্ত আইনের অযুহাতে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে কেরামতিয়া বড় মসজিদের দো-তলা ভবন নির্মাণ কাজে বাঁধা দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ।

২০১১ সালে বাংলাদেশ ও ভারতের উচ্চ পর্যায়ে মসজিদের নকশা অনুমোদন হওয়ার পর একই বছরের ২৯ এপ্রিল দো-তলা মসজিদ নির্মানের কাজ শুরু হয়। কিন্তু গতকাল শুক্রবার মসজিদের নির্মানের কাজের শেষ পর্যায়ে জানালায় গ্লাস লাগানোর সময় ভারতের বিএসএফ শিতলকুচি থানার অমিত ক্যাম্পের টহল দেশের অভ্যন্তরে প্রবশে করে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেয়। এতে বাংলাদেশী লোকজনসহ মসজিদের নামাজ পড়তে আসা শত শত মুসল্লীদের মাঝে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ।

জানা যায়, দোলাপাড়া সীমান্ত এলাকায় মোঘল আমলে কেরামতিয়া হুজুর নামে এক দরবেশ বসবাস করতেন। তার সহযোগিতায় সেখানে ওই সময়ে একটি ছোট মসজিদ নির্মিত হয়। তার মৃত্যুর পর ঐ মসজিদের পাশেই তাকে দাফন করে কবর¯থ করা হয়েছে। পরে টিনশেট করে একটি বড় আকারের মসজিদ নির্মাণ হয় সেখানে। ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের সময় মসজিদ ও মাজারটি জিরোপয়েন্টে পড়ে যায়। কেরামতিয়া হুজুরের মাজার ও মোঘল আমলের মসজিদকে কেন্দ্র করে প্রতি শুক্রবার দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হাজার হাজার মুসুল্লি নানা নিয়তে নামাজ পড়তে আসে। এর কারনে মসজিদটিতে দিন দিন জায়গা সংকুলন দেখা দেওয়ায় পুণঃ নির্মাণের কাজ শুরু করে বর্তমান মসজিদ নির্মান কমিটি।

মসজিদ কমিটি’র সাধারন সম্পাদক আলিমুদ্দিন জানান, দুই দেশের মধ্যে নকশা অনুমোদন হওয়ার পর মসজিদ নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়েছে। কিন্তু প্রায় সময় ভারতীয় বিএসএফ নানা অযুহাতে নির্মাণ কাজে বাঁধা দেওয়া হয়েছিলো। জানালায় রঙ্গিন গ্লাস লাগাতে বাঁধা দিলে আমরা সাদা গ্লাস লাগাতে শুরু করি। কিন্তু শুক্রবার সেই গ্লাস লাগাতেও বাঁধা দেয়া হয়।

৬১-বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি’র বড়খাতা কোম্পানী কমান্ডার সুবেদার ইব্রাহিম মোল্লা জানান, ভারতীয় বিএসএফ মসজিদের নির্মাণ কাজে বাঁধা দিলেও নির্মাণ কাজ বন্ধ নেই বর্তমানে টাইলস লাগানো কাজ চলছে। এ সপ্তাহে মধ্যে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে গ্লাস লাগানোর সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে।

এম কে ইসলাম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category