Wednesday, March 3rd, 2021




রাজারহাটে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

রাজারহাটে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সংবাদ সম্মেলনর

এ.এস লিমন, (রাজারহাট, কুড়িগ্রাম): কুড়িগ্রামের রাজারহাটে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদকে ধরে নিয়ে গিয়ে শারীরিক নির্যাতন ও মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করার অভিযোগ এনে মঙ্গলবার বিকেলে রাজারহাট ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কার্যালয়ে মুক্তিযোদ্ধা ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড এর আয়োজনে সংবাদ সম্মেলন করেন ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা পরিবার।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা আ: হামিদের কন্যা রেশমা আক্তার দাবি করেন, রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউপির সুলতান বাহাদুর গ্রামের মৃত লুৎফর রহমানের পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা আ:হামিদ ও তার ছোট ভাই আ:হাকিম এর সঙ্গে একই গ্রামের মৃত সামছুল হকের পুত্র মো: একরামুল হক কাওছার গংদের সঙ্গে দীর্ঘদিন থেকে জমি-জমার বিরোধ চলে আসছিলো। দীর্ঘদিন মামলা চলার পর সম্প্রতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আ:হামিদ ও তার ছোট ভাইয়ের নামে বিজ্ঞ আদালত রায় দেন।

কিন্তু গত ১৯ ফেব্রয়ারী ২০২১ খ্রি: উক্ত জমিতে একরামুল হক কাওছার গং উক্ত জমিতে ঘর নির্মাণ করার চেষ্টা কালে মুক্তিযোদ্ধা আ:হামিদ বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে একরামুল হক কাওছার গং ক্ষিপ্ত হয়ে আ:হামিদকে ধরে নিয়ে গিয়ে রশি দিয়ে বেঁধে শারীরিক নির্যাতন করে।খবর পেয়ে মুক্তিযোদ্ধা হামিদের ছেলে জাহিদ ও তার পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করতে গেলে উভয় পক্ষে সংঘর্ষ বাঁধে।

এক পর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধা আ:হামিদকে উদ্ধার করে তার বাড়িতে নিয়ে আসে। খবর পেয়ে রাজারহাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা আ:হামিদ সহ উপস্থিত ৭ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। ওইদিন সন্ধ্যায় রাজারহাট উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডের সাবেক কমান্ডার মো:রজব আলী ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড এর নেতৃবৃন্দ রাজারহাট থানায় গিয়ে রাজারহাট থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রাজু সরকারের সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা আ:হামিদকে সুষ্ঠ তদন্ত না করে আটক করে না রাখার জন্য বার বার তাগাদা প্রদান করলে ওসি রাজু সরকার মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার মো: রজব আলীকে গ্রেপ্তার করার হুমকি-ধামকি প্রদান করেন।

এ বিষয়ে রাজারহাট থানার ওসি মো: রাজু সরকারের সঙ্গে কথা বললে তিনি এ প্রতিনিধিকে জানান, বীর মুক্তিযোদ্ধা আ: হামিদকে ছাড়তে বার বার আমাকে চাপ প্রয়োগ করেছিলেন সাবেক কমান্ডার মো: রজব আলী।এক পর্যায়ে আমি তাকে বলেছি আপনি সরকারি কাজে বাধা প্রদান করার চেষ্টা করছেন বার বার, ইচ্ছে করলে আপনাকে উক্ত মামলায় আসামী হিসেবে গ্রেপ্তার করতে পারি এ টুকুই বলেছি মাত্র। আর বীর মুক্তিযোদ্ধা আ: হামিদকে যথাযথ সম্মানের সহিত হ্যান্ডকাপ ছাড়া থানায় নিয়ে এসে রাতে ডিউটি অফিসারের কক্ষে রেখেছি। পরদিন যথা সময়ে সম্মানের সহিত আদালতে প্রেরণ করেছি। #(ছবি সংযুক্ত)

এস ইসলাম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category