‘রক্ত ভাসা স্বাধীনতা’

বজলুর রশীদ চৌধূরী

মিশিগান, যুক্তরাষ্ট্র

 

বর্গী-তুর্কী-ফার্সী গেল-গেল কত সুলতান,

মগ্-মারাঠা-বৃটিশ গেল-আইল পাকিস্তান।

রাজা-বাদশাহ্ বদল হয়-মোদের বদল নাই,

এক শাসক ছেড়ে গেলে-আরেক শোষক পাই।

বাবা-দাদা কত গেলেন-একই নির্যাতন,

এ সব কথা কইতে আর-চায়না পোডা.মন।

কত মন্ত্রীর তাবেদার আর কত রাজার দাসী,

কত পায়ে বেড়ি লইলাম-কত গলায় ফাঁসী।

কত হাতের কিল্ চড়-কত পায়ের লাথি,

নিরালাতে বসে বসে কাঁদি, দিবা-রাতি।

কারায় কারায় নিখোঁজ রইলাম-হাতে পায়ে শিকল,

স্বাধীনতার আশে থাকি-মুছে চোখের জল।

ধরে ধরে নিয়ে যায়-করে কত শোষন,

ঘরে ঘরে লুঠে নেয়-নারীর আসল ভূষন।

দুঃখে-শোকে জীবন যায়-নাহি পূরে আশ,

গোলামীর জিঞ্জির পরে-থাকি কারাবাস।

মুখের ভাষা রক্ষা করতে-রক্তে ভাসে দেশ,

মিছিলে মিছিলে আসি একাত্তরের শেষ।

সত্তর সনে গনভোট-সাতই ডিসেম্বর,

বিজয় পেল বাংলার মানুষ-বঙ্গবন্ধু বর।

অগ্নিঝরা সাতই মার্চ বঙ্গবন্ধুর ডাকে,

জেগে উঠে বীর বাঙ্গালী-বাংলার বাঁকে বাঁকে।

“এবারের সংগ্রাম, মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম,

স্বাধীনতার সংগ্রাম” পচিশ মার্চ ভয়াল রাত

ঘোর অন্ধকার নির্বিচারে মানুষ মারে পাক্-হানাদার।

ছাব্বিশ মার্চ মেজর জিয়া স্বাধীন বাংলা কয়,

বঙ্গবন্ধুর শ্লোগান ‘বাংলা করবো জয়।

বীর বাঙ্গালী গর্জে উঠে অস্ত্র তুলে হাতে,

পূরো নয় মাস যুদ্ধ করে হানাদারের সাথে।

অবশেষে বিজয় পেলাম-ষোল ডিসেম্বর,

কত সাথী শহীদ হল-ফিরলনা আর ঘর।

ছেলে হারা, স্বামী হারা, পিতা হারা সন্তান,

পচাঁ গন্ধে বাতাস ভারী-নাহি বাসস্থান।

রক্ত ভাসা স্বাধীনতা-অঙ্গেঁ অঙ্গেঁ দাগ,

সব হারায়ে তোমায় পেলাম-ইহাই বড় ভাগ।

 

এম কে ইসলাম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category