Wednesday, June 22nd, 2022




বাহিনীকে আরো শক্তিশালী করার ঘোষণা পুতিনের

বাহিনীকে আরো শক্তিশালী করার ঘোষণা পুতিনের

কালের সংবাদ আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ রাশিয়ার সেনাবাহিনীকে শক্তিশালী করার প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখবেন বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

স্থানীয় সময় গত সোমবার টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে পুতিন বলেন, ‘সম্ভাব্য সামরিক হুমকি ও ঝুঁকি বিবেচনায় আমরা আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর বিকাশ ও শক্তিশালীকরণ অব্যাহত রাখব। ’ এ ছাড়া ভাষণে তিনি রাশিয়ার পরীক্ষিত নতুন আন্তর্মহাদেশীয় ‘সারমাত’ ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের কথা উল্লেখ করে জানান, চলতি বছরের শেষ নাগাদ এই ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করা হতে পারে।

ইউক্রেনকে পশ্চিমাদের অস্ত্র সরবরাহের বিষয়ে বারবার সতর্ক করে আসছে ক্রেমলিন।

প্রেসিডেন্ট পুতিন নিজেও বলেছেন, ‘কিয়েভকে যদি দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র দেওয়া হয়, আমরা উপযুক্ত সিদ্ধান্ত নেব এবং এমন লক্ষ্যে আঘাত হানতে আমাদের অস্ত্র ব্যবহার করব, যেসব লক্ষ্যে আমরা আগে আঘাত করিনি।’ গত সোমবার সরাসরি তিনি জানালেন নিজ সেনাবাহিনীর সমৃদ্ধি অব্যাহত রাখার কথা।

নোবেল পুরস্কারের পদক বিক্রি করে ইউক্রেনীয়দের অর্থ পাঠাচ্ছেন রুশ সাংবাদিক শান্তিতে নোবেলজয়ী রুশ সাংবাদিক দিমিত্রি মুরাতভ পুরস্কার হিসেবে পাওয়া তাঁর গোল্ড মেডেলটি নিলামে বিক্রি করে দিয়েছেন। গত সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে আয়োজিত এক নিলামে সেটি বিক্রি হয়। নোবেল স্বর্ণপদকটি ১০ কোটি ৩৫ লাখ ডলারে বিক্রি হয়ে যায়। পদক বিক্রি করে পাওয়া অর্থ ইউক্রেন যুদ্ধে বাস্তুচ্যুত শিশুদের সহায়তায় ব্যয় করবেন মুরাতভ।

রাশিয়ার স্বাধীন ধারার সংবাদপত্র নোভায়া গেজেতার প্রধান সম্পাদক মুরাতভ ২০২১ সালে ফিলিপাইনের সাংবাদিক মারিয়া রেসার সঙ্গে যৌথভাবে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। সেই পুরস্কারের পদকটিই নিলামে বিক্রি করলেন মুরাতভ।

সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর ১৯৯৩ সালে সাংবাদিকদের যে দলটি নোভায়া গেজেতা প্রতিষ্ঠা করেছিল, তাদেরই একজন মুরাতভ। প্রেসিডেন্ট পুতিনের সমালোচক সংবাদপত্রটি রাশিয়ায় নিজেদের কার্যক্রম স্থগিত করে ইউক্রেনে রুশ অভিযান শুরুর এক মাস পার হওয়ার পরপর। ইউক্রেনে রুশ অভিযানের সমালোচনা করলে কঠোর সাজার বিধান রেখে রাশিয়ায় আইন পাস হওয়ার পর নোভায়া গেজেতা ওই সিদ্ধান্ত নেয়।

যুদ্ধ পরিস্থিতিইউক্রেনের দনবাস হিসেবে পরিচিত অঞ্চলের বৃহত্তম শহর সেভেরোদোনেস্ক এখনো প্রতিরোধযুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে ইউক্রেনীয় বাহিনী। শহরের সব আবাসিক এলাকার দখল রুশ বাহিনীর হাতে চলে গেলেও শিল্প এলাকায় এখনো লড়াই চলছে। অথচ এরই মধ্যে সেভেরোদোনেেস্কর আশপাশের দুটি গ্রাম রুশ বাহিনী দখল করে নিয়েছে।

রুশ বাহিনীর মনোযোগ কেবল দখলে সীমাবদ্ধ নেই, বরং ইউক্রেনে দখল করা এলাকাগুলোয় স্থায়ী ভিত করার কার্যক্রম চালাচ্ছে ক্রেমলিন।

সূত্র : এএফপি, রয়টার্স

একে  আরিফ/

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category