Saturday, February 20th, 2021




বাগেরহাটে পুলিশ সুপারকে বিদায়ী সংবর্ধনা

বাগেরহাট, প্রতিনিধি: বাগেরহাট পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায়ের বদলিজনীত বিদায় উপলক্ষে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। শনিবার ২০ (ফেব্রুয়ারী) বাগেরহাট মডেল থানা পুলিশের উদ্যেগে থানা চত্বরে আলোচনা সভা ও সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়।

মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কে এম আজিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন বাগেরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাব্বেরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, আইনজীবী সমিতির সভাপতি ড. এ কে আজাদ ফিরোজ টিপু, বাগেরহাট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এড. মোজাফফর হোসেন, সাংবাদিক এড. শাহ আলম টুকু, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ষাটগম্বুজ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান বাচ্চু, সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শওকত হোসেন, সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রিজিয়া পারভীন, মডেল থানার ওসি (তদন্ত) পান্নু মিয়া, উপ পুলিশ পরিদর্শক শেখ আসাদুজ্জামান, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ মনির হোসেন প্রমুখ। বক্তারা পুলিশ সুপারের বাগেরহাটে কর্মকালীন সময়ের বিভিন্ন কর্মকান্ড তুলে ধরে তার ভূয়সী প্রশংসা করেন। পুলিশ বিভাগের কর্মকর্তারা উর্ধতন একজন যোগ্য অভিভাবককে বিদায় দিতে গিয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন। এসময় পুলিশ সুপারের সুন্দর আগামী ও তার পরিবারের সদস্যদের দীর্ঘায়ু কামনা করেন।

স্থানীয় নারী ইউপি সদস্য সোভা রানী মন্ডল বলেন, জ্ঞান বিজয় সেবাশ্রম একটি জনকলান মুখী প্রতিষ্ঠান। যেকোন অসহায় মানুষকে এই প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সহযোগিতা করা। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের উপকার করে এই প্রতিষ্ঠানের মালিক আনন্দ মোহন বিশ্বাস।

স্থানীয় গোপাল রায়, পিনাক মন্ডল, চিত্ত রঞ্জন মজুমদারসহ কয়েকজন বলেন, জ্ঞান বিজয় সেবাশ্রম শুধু ধর্মীয় রীতিনীতি পালনের মধ্যে আবধ্য নয়। এই প্রতিষ্ঠান এলাকার হতদরিদ্রদের সহযোগিতা ও শ্রেনি বৈষম্য নিরসনে কাজ করে যাচ্ছে। আমরা এই প্রতিষ্ঠানের মঙ্গল চাই।

ঠাকুর দাস মন্ডল বলেন, আমি সাধু সমাজের একজন সদস্য। আমরা সাম্যের সম্মানে বিশ্বাস করি। ব্রা²ন, ক্ষত্রিয়, বৈষ্ণ ও সুদ্র এই চার শ্রেণির বেড়াজালে হায়ার কাস্ট (উচ্চ বর্ণ), মিডিল কাস্ট (মধ্য বর্ণ), শিডিউল কাস্ট, লোয়ার কাস্ট(নিম্ন বর্ণ)হিসেবে মানুষকে বিবেচনা করা হয়। নানা সুযোগ-সুবিধার ক্ষেত্রেও বৈষম্যের শিকার হন তারা।

জ্ঞান বিজয় সেবাশ্রমের সভাপতি আনন্দ মোহন বিশ্বাস বলেন, আমরা সবাই একই গ্রষ্ঠার সৃষ্টি। আমরা গ্রষ্ঠার সৃষ্টিকে ভালবাসি।মানুষের সেবা করাই আমাদের মূল লক্ষ। শিক্ষা বিস্তারে হতদরিদ্র মেধাবীদের আর্থিক সহযোগিতা, কৃষকদের চাষাবাদসহ প্রত্যেকটি কাজে সহযোগিতা করে থাকি। স্বজন হারা অসহায় মায়েদের জন্য রয়েছে আমাদের জ্ঞান মন্দির।

আনন্দ মোহন বিশ্বাস আরও বলেন, মানুষ হিসেবে সবাই সমান। সবাই-ই রাষ্ট্রের নাগরিক। প্রত্যেকের সমান সুযোগ পাওয়া উচিত। কিন্তু শুধুমাত্র ধর্মীয় রীতিনীতির অজুহাত দিয়ে মানুষকে পিছিয়ে রাখা যাবে না। আমরা সাধু সমাজের মাধ্যমে সেই শ্রেণিবৈষম্য দূর করার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আমরা ধর্মে বিশ্বাস করি। কিন্তু ধর্মের নামে কোন মানুষের অধিকার হরণের রীতি মানি না। মানুষকে শিক্ষার আলোয় আলোকিত করে আমরা সকল মানুষকে সাম্যের সম্মান এনে দেওয়া দাবি জানান তিনি।

এস ইসলাম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category