নামাজ পড়া বন্ধ রেখে মুসল্লিরা অ্যাম্বুল্যান্স ও লাশবাহী গাড়ি যাওয়ার সুযোগ করে দিল

বিপ্রদ্বীপ দাস, (হুগলী, কলকাতা, ভারত): এক রোগীকে নিয়ে দাঁড়িয়েছিল একটি অ্যাম্বুল্যান্স। তার পিছনে একটি শববাহী গাড়ি।

তা দেখেই মিনিট খানেকের জন্য শ’খানেক মানুষ নামাজ পড়া বন্ধ করে উঠে দাঁড়ালেন। সরে গিয়ে রাস্তা ফাঁকা করে দিলেন। গাড়িদু’টি বেরিয়ে গেল। তার পর তাঁরা নমাজে বসলেন।

বুধবার খুশির ইদে এমনই ঘটনার সাক্ষী রইল হুগলি জেলার মুসলিম এলাকা হিসাবে পরিচিত পান্ডুয়ার মেলাতলা। ঐতিহাসিক গম্বুজের পাশে জিটি রোডে এ দিন সকালে নমাজের আয়োজন করেছিল অঞ্জুমান ইদ কমিটি। বহু মানুষ এখানে নমাজ পড়তে আসেন। সেই কারণে তখন ওই রাস্তায় গাড়ি চলাচল বন্ধ ছিল। নমাজের মাঝেই আয়োজক কমিটির কর্মকর্তা তথা অঞ্জুমান খেদমাতুল্লা ইসলাম নামে একটি সামাজিক সংগঠনের সম্পাদক হাজী কামরুল হুদার নজরে পড়ে, এক মহিলাকে নিয়ে একটি অ্যাম্বুল্যান্স দাঁড়িয়ে আছে। মহিলার স্যালাইন চলছে। সঙ্গে সঙ্গেই কামরুল পুলিশকে বিষয়টি জানান। পাশে যাঁরা নমাজ পড়ছিলেন, তাঁদেরও বলেন।

এর পরেই রাস্তার একাংশের লোক নমাজ পড়া বন্ধ করে দাঁড়িয়ে পড়েন। ওই অ্যাম্বুল্যান্স এবং লাশবাহী গাড়ি বেরিয়ে যায়। নামাজ শেষ হতে তখনও মিনিট পনেরো বাকি।

জানা যায়, পান্ডুয়া হাসপাতাল থেকে ওই রোগিণীকে  অ্যাম্বুল্যান্সে চুঁচুড়া ইমামবাড়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। অন্য দিকে, একটি মরদেহ নিয়ে লাশবাহী গাড়িটি “ত্রিবেণীর বিখ্যাত পবিত্র শ্মশানে” নিয়ে যাচ্ছিল।

কামরুল বলেন, ‘‘আমরা ধর্মপ্রাণ। কিন্তু মানুষের প্রাণ বাঁচানোও তো জরুরি। নামাজ বন্ধ হয়নি। আমরা কিছু জন মিনিট খানেকের জন্য নামাজ পড়া বন্ধ রেখেছিলাম। ওই মহিলা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন, এই প্রার্থনা করি।’’

এম কে ইসলাম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category