Saturday, November 21st, 2020




নওগাঁয় কলেজ শিক্ষার্থী মিম হত্যাকান্ডে জড়িতদের বিচার দাবিতে মানববন্ধন

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, নওগাঁ: নওগাঁর ধামইরহাট সরকারি এম এম কলেজের মেধাবী শিক্ষার্থী তানিয়া আকতার (মিম) কে নওগাঁর পত্নীতলার ইসলামিয়া ক্লিনিক এন্ড ডিজিটাল ডায়গনস্টিক সেন্টারে নির্মম ভাবে হত্যার সুষ্ঠু বিচারের দাবীতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে কলেজ শিক্ষার্থীরা।

শনিবার ২১ নভেম্বর সকাল ১১ টায় ধামুরহাট উপজেলা পরিষদের সামনে কলেজ শিক্ষার্থী রাজু ইসলামের নেতৃত্বে সরকারি এম এম কলেজের শত শত শিক্ষার্থী, শিক্ষক-অভিভাবক ও সাধারণ জনগণ মানববন্ধনে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে অংশগ্রহণ করেন। এ সময় পত্নীতলা থানায় হত্যা মামলা না নেয়া, পরিবারের লোকজনদের ভিকটিমের লাশ দেখতে না দেয়া, থানায় জোর করে পিতার স্বাক্ষর নেয়া সহ বিভিন্ন অভিযোগ তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মো. জাবিদ হোসেন মৃদু, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান এডভোকেট আইয়ুব হোসেন, তানিয়া আকতার মিমের মা শম্পা আকতার, উপজেলা প্রেস ক্লাব সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান, নিহতের চাচাতো বোন সাদিয়া সুলতানা, সাংবাদিক হারুন আল রশীদ, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু সুফিয়ান হোসাইন, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাসুদ রানা ফারুক, ছাত্রনেতা মাহবুব আলম রাজ প্রমুখ।

উল্লেখ্য গত ১৮ নভেম্বর পত্নীতলার নজিপুরে ইসলামিয়া ক্লিনিক এন্ড ডিজিটাল ডায়গনস্টিক সেন্টারে কর্মরত তানিয়া আকতার মিমকে ঐ ক্লিনিকের একটি রুমের ভেতর অগোছালো পড়নের কাপড়

(এক প্রকার উলঙ্গ) অবস্থায় ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পেয়ে সে সময় ঐ ক্লিনেকের মালিক সহ অপর স্টাফ পালিয়ে যান একই সময় ভর্তি থাকা রোগীদের নিয়ে স্বজনরা চলে যান। ঘটনার খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে বিবস্ত্র অবস্থায় মিম এর মৃতদেহ উদ্ধার করেন। পরিবারের দাবী তাকে মিমকে ধর্ষণ করে হত্যার পর পরিকল্পিতভাবে  আত্নহত্যা বলে চালিয়ে দেবার জন্য চেষ্টা করছেন ওই ক্লিনিকের মালিক নিজামুদ্দিন বাবু।

অভিযোগ রয়েছে, ওই ক্লিনিকে নিয়োগ পূর্ব শর্ত হচ্ছে সুন্দরী মেয়ে হতে হবে, আর এসব সুন্দরী মেয়েকে, কখনো, নার্স, কখনো রিসিপশনিস্ট ও ভালো লোভনীয় পদ-পদবীর লোভ দেখিয়ে তাদের নিয়োগ দেওয়া হয়।

পুলিশ বলছে যেহেতু, একটি বদ্ধ ঘর থেকে মৃতদেহটি উদ্ধার করা হয়েছে, ‘বিষয়টি পুলিশ গভীরভাবে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে, তবে মিমের বাবা মিজানুর রহমানের নিকট জোর করে স্বাক্ষর নেয়া বিষয়ে ওসি শামসুল আলম শাহ সাংবাদিকদের বলেন, পরিবারের লোকজন বা কোন সাংবাদিকের কোন অভিযোগ থাকলে স্বাক্ষাতে এসে কথা বলতে হবে।

অপরদিকে অভিযুক্ত ঐ ক্লিনিক মালিক ঘটনার পর থেকেই ধামাচাপাদিতে বিভিন্ন মহলে দৌড়ঝাপ করছেন এমনকি নিহতের পরিবারকেও ম্যানেজ করতে তৎপরতা চালাচ্ছেন বলে  মানব বন্ধনে বক্তারা উল্লেখ করে  অভিযুক্ত ঐ ক্লিনিক মালিক সহ জড়ীতদের দ্রুত আইনের আওতায় আনার দাবি জানানো হয়।

এস ইসলাম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category