নওগাঁর মান্দায় জোড়া লাগানো জমজ শিশুর জন্ম

সাদাকাতুল বারী জয়, নওগাঁ: নওগাঁর মান্দায় দুটি দেহের সঙ্গে জোড়া লাগানো দুই কন্যাশিশুর জন্ম দিয়েছেন এক মা। শিশু দুটিকে দেখতে সকাল থেকে ক্লিনিকে ভিড় করেছে নানা বয়সী নারী-পুরুষ। বর্তমানে প্রসূতিসহ শিশুদুটি সুস্থ রয়েছে। তবে তাদের বাঁচাতে উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার প্রসাদপুর বাজারে ফয়সাল ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে এই জমজ শিশু জন্ম নেয়।

ক্লিনিক সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার চককামদেব গ্রামের সবুজ হোসেন সরদারের স্ত্রী ফরিদা বেগম বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ক্লিনিকে ভর্তি হন। সকাল ৯টা ৪০মিনিটের দিকে চিকিৎসক আব্দুস সোবহান অস্ত্রোপচার করে দুটি দেহের সঙ্গে জোড়া লাগানো দুটি কন্যা সন্তান বের করেন।

ক্লিনিক মালিক জিয়াউর রহমান জানান, শিশু দুটির মাথা, বুক ও পেট জোড়া লাগানো অবস্থায় জন্ম নেয়। জন্মের পর শিশু দুটি সুস্থ রয়েছে। চিকিৎসকের পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য দুপুরের দিকে তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

জমজ শিশুর বাবা সবুজ হোসেন বলেন, ভ্যান চালিয়ে অনেক কষ্টে সংসার পরিচালনা করছি। সন্তান জন্ম নেয়া সবার জন্য খুশির খবর হলেও, জোড়া লাগানো জমজ সন্তান জন্ম আমি চরম বিপাকে পড়েছি। শিশু দুটিকে বাঁচাতে সমাজের বিত্তশালী ব্যক্তিসহ প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা কামনা করেছেন তিনি।

ফয়সাল ক্লিনিকের চিকিৎসক আব্দুস সোবহান বলেন, অস্ত্রোপচারের পর শিশু দুটি ও তাদের মা সুস্থ রয়েছে। জোড়া লাগা শিশু দুটিকে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে পৃথক করতে হবে। তবে শিশু দুটির পায়খানা প্রসাবের রাস্তা ভিন্ন হওয়ায় অস্ত্রোপচার করে বাঁচানোর সম্ভাবনা বেশি রয়েছে।

নওগাঁ সিভিল সার্জন মুমিনুল হক বলেন, জোড়া লাগা শিশুদের আলাদা করার ব্যাপারে স্থানীয় পর্যায়ে কোনো চিকিৎসা পদ্ধতি নেই। জমজ শিশু দুটিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ওখানকার চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠানোর পরামর্শ দেবেন। সেখানেই চিকিৎসকদের তত্ত্ববধানে তাদের আলাদা করা সম্ভব।

 

এম কে ইসলাম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category