জাপানের রেনকোজি মন্দিরে রক্ষিত নেতাজির চিতাভস্মের ডিএনএ পরীক্ষা করবে ভারত সরকার

বিপ্রদ্বীপ দাস, (হুগলি,কলকাতা,ভারত):  ১৯৪৫ সালের ১৮ আগস্ট তাইহোকুতে বিমান দুর্ঘটনায় নেতাজি সুভাষচন্দ্রের মৃত্যু হয়েছিল কি না, সেই রহস্যের এখনও সমাধান হয়নি। ২০১৪ সালে প্রথমবার ক্ষমতায় আসার আগে এই রহস্য উন্মোচনের বিষয়ে ঢালাও প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। নেতাজিকে নিয়ে বেশ কিছু সরকারি ফাইল প্রকাশ্যে আনলেও বিমান দুর্ঘটনায় মৃত্যু বা ‘গুমনামিবাবা’কে নিয়ে চলে আসা নানা ধরনের দাবি-পাল্টা দাবিকে ঘিরে তৈরি হওয়া বিবাদে ইতি পড়েনি।

তাই দীর্ঘকাল ধরে এই মহান স্বাধীনতা সংগ্রামীর পরিবারসহ অসংখ্য সুভাষপ্রেমী জাপানের রেনকোজি মন্দিরে রক্ষিত নেতাজির চিতাভস্মের ডিএনএ পরীক্ষার দাবি জানিয়ে এসেছেন। এবার মোদি সরকার সেই দাবিকেই মান্যতা দেওয়ার কথা চিন্তাভাবনা করছে। এনিয়ে কূটনৈতিক পর্যায়ে জাপান সরকারের সঙ্গে তাদের প্রাথমিক কথাবার্তাও এক ধাপ এগিয়েছে।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের আসন্ন ভারত সফরের সময় এব্যাপারে দু’দেশের তরফে যৌথ ঘোষণা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও দিল্লির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রের খবর। শেষ পর্যন্ত যদি এই ডিএনএ পরীক্ষার পথে কেন্দ্র এগয়, তাহলে ৭৪ বছর পরে নেতাজির অন্তর্ধান রহস্য উন্মোচন প্রক্রিয়া চূড়ান্ত পরিণতির পথে যাবে বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষকরা।

জানা গিয়েছে, শিনজো আবের ভারত সফর নিয়ে গত সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের সঙ্গে জাপান সরকারের কূটনৈতিক স্তরে আলোচনা হয়। সেই আলোচনায় জাপানের প্রধানমন্ত্রীকে এবার মোদি উত্তর-পূর্ব ভারতে নিয়ে যাবেন বলে ঠিক হয়। গুয়াহাটি ও ইম্ফলে তাঁদের কিছু কর্মসূচি প্রাথমিকভাবে ঠিক হয়েছে। তবে মণিপুরের মৈরাংয়েও শিনজো আবেকে নিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা রয়েছে মোদির।

ঐতিহাসিক মৈরাংয়েই আইএনএ পতাকা তুলে নেতাজির স্বপ্নের আজাদ হিন্দ সরকার গঠিত হয়েছিল। সেখানে সুভাষচন্দ্রের স্মারকও রয়েছে। শিনজো আবেকে সেই স্মৃতিবিজড়িত স্থানটি দেখানোর খুব ইচ্ছা মোদির। এব্যাপারে জাপান সরকারের তরফেও তেমন কোনও আপত্তি তোলা হয়নি। এই আলোচনাতেই রেনকোজি মন্দিরে রক্ষিত চিতাভস্মের ডিএনএ পরীক্ষার প্রসঙ্গ ওঠে। সেক্ষেত্রে দুই দেশের প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠনের কথাও হয়।

সেই কমিটির তত্ত্বাবধানে ভারত ও জাপান ছাড়াও আমেরিকা, ব্রিটেনের মতো তৃতীয় কোনও উন্নত দেশের আধুনিক ল্যাবরেটরিতে ওই চিতাভস্মের ডিএনএ পরীক্ষা করানো যেতে পারে বলেও আলোচনা হয়।কেন্দ্রের তরফে এই ধরনের ভাবনার কথা জানতে পেরে ইতিমধ্যেই নেতাজি অনুরাগী বহু মানুষের মধ্যে প্রবল আগ্রহ তৈরি হয়েছে। খোদ বসু পরিবারও এনিয়ে রীতিমতো উৎসাহিত।

বসু পরিবারের মুখপাত্র চন্দ্রকুমার বসুও এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। মোদি সরকারের এই ভাবনার কথা জানতে পেরে তাকে স্বাগত জানিয়েছেন নেতাজি অন্তর্ধান রহস্য সমাধানের দাবিতে সরব হওয়া সুপর্ণ সতপথীও। তবে বসু পরিবার সূত্রের খবর, সরকার এবারও যদি এই পদক্ষেপ থেকে শেষমেশ পিছিয়ে আসে, তাহলে তারাই এবার এই পরীক্ষার পথে যাবে। এজন্য ইতিমধ্যে রেনকোজি মন্দিরের পুরোহিতের সঙ্গে প্রাথমিক কথাবার্তা সম্প্রতি সেরেও এসেছেন সুভাষের এক আত্মীয়।

এস ইসলাম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category