“খেলা”

কবি—ইখতিয়ার উদ্দীন আজাদ —

 

যেহেতু মানুষ মরণশীল!

দ্বিধা সংকোচের সিঁড়ি ভেঙে,

চলো যওয়া যাক- প্রার্থিত কোন গন্তব্যে।

ডুবে থাকা যাক আনন্দ সরোবরে ডুব সাঁতারে।

তার আগে আমাকে জানতে হবে,

প্রেমিক হয়েছে কতটা যতটা হয়েছে পুরুষ?

কতটা রপ্ত করেছে মানুষবিদ্যা,

শামুকের জীবন ব্যাকরণ নয়।

এমনিতেই সময় অনেক কম আমাদের হাতে-

ব্যবলনের যাদু বিদ্যা আমরা পারদর্শী নই

মোটেও নারী ও শরাব বিলাসী নয় প্রকাশ্য

এই রাষ্ট্র যদিও স্বর্গে নাকি

এই দুটোই পূন্যবানের উপহার দেওয়া হয়।

পৃথিবীতে এগুলো কেন তবে নিষিদ্ধতম মানুষের জন্য?

এসব প্রশ্নে প্রায়শ মানুষের মনে জাগতে পারে বৈকি,

মানুষ কৌতুহল প্রিয় প্রাণিকূল তবে এসব প্রশ্নের উত্তর না খুঁজে,

আমরা বরং পরিকল্পনা করতে ভ্রমনপথের আমাদের গন্তব্য

যদিও জম্মাবধি সুনিদিষ্টকৃত,

আমরা জীবনের হাত ধরে শিশু হতে হেটে যাচ্ছি তার দিকে।

মধ্যখানে পথজুড়ে মেতেছে সবাই খেলায়,

নিত্য খেলায় খেলার নাম ও মাঠটি

কেবল পরিবর্ধিত কিংবা পরিবর্তন ঘটে,

পরিসমাপ্তি নয়। এসো খেলা যাক আরেকটি খেলা,

আগুন আর বরফ নিয়ে।

আগুন দিয়ে খোদাই করি খোদাই করি

বুকের মধ্যখান বরাবর একটা নিটোল সমুদ্র আর বরফ

জমিয়ে রাখো তোমার বুক পকেটে,

তারপর আমরা ঘুমিয়ে পড়ব পরস্পরের

বাম পাঁজরের হাড়ে মাথা রেখে।

এম কে ইসলাম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category