Wednesday, January 27th, 2021




খলিফা ওমর বিন আবদুল আজিজের কান্না সন্তানের সামনে

খলিফা ওমর বিন আবদুল আজিজের কান্না সন্তানের সামনে

কালের সংবাদ ডেস্ক:  উন্নয়ন অগ্রগতির জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন মানুষের অনুভূতি জাগ্রত হওয়া। এটা বুঝতে শেখা যে তার কি প্রয়োজন? এবং তা পূরণে তার করণীয় কি? অনুভব ও অনুভূতি অনেক বড় বিষয়। এর মাধ্যমেই পৃথিবীতে বহু বড় বড় কাজ সম্পন্ন হয়। কখনো কখনো মানুষ উদাসীন ও অমনোযোগী হয়। ফলে তার ভেতর কোনো অনুভূতি কাজ করে না। সে বোঝে না তার কি প্রয়োজন এবং সে প্রয়োজন পূরণে তার ভেতর কী কী দুর্বলতা রয়েছে। এরপর যখন তার ভেতরটা জেগে ওঠে তখন সেই দুর্বল মানুষের জীবনে বিপ্লব বয়ে যায় এবং সে সাফল্যের শীর্ষে পৌঁছে যায়।

ওমরের পরকালের মুক্তির ভয় : খলিফা হওয়ার আগে ওমর ইবনে আবদুল আজিজ (রহ.) মদিনার গভর্নর ছিলেন। প্রথমে অন্যান্য গভর্নরের মতোই চলাফেরা করতেন, উন্নত পোশাক পরিধান করতেন, মূল্যবান সুগন্ধি ব্যবহার করতেন; এক কথায় উন্নত জীবন যাপন করতেন। এমনকি তার চাল-চলন অন্যরা অনুসরণ করতে লাগল এবং তার নাম হলো ‘আল মায়িশাতুল ওমরিয়্যা’ বা ওমরীয় জীবনধারা। কিন্তু খলিফা মনোনীত হওয়ার পর তিনি সম্পূর্ণ বদলে গেলেন। তার কাছে আরাম আয়েশের যত উপকরণ ছিল তিনি সব দরিদ্র মানুষের জন্য দান করে দিলেন। অতি সাধারণ জীবন যাপন শুরু করলেন।

ওমরের সাধাসিধে জীবন : ইতিহাস গ্রন্থে এসেছে, তার সন্তানরা নতুন জীবনে বিচলিত ছিল। খাবার তাদের পছন্দ হতো না। একবার তিনি সন্তানদের সঙ্গে দেখা করতে এলে তারা হাত দিয়ে মুখ ঢেকে রাখে। তিনি কারণ জানতে চাইলে তারা বলল, ঘরে অন্য খাবার না থাকায় তারা পেঁয়াজ খেয়ে আছে। তাদের ধারণা এতে খলিফার কষ্ট হবে। ওমর ইবনে আবদুল আজিজ (রহ.) কাঁদতে লাগলেন এবং বললেন, যদি তোমরা চাও এবং পছন্দ করো যে তোমাদের পিতা জাহান্নাম থেকে বেঁচে যাক, জান্নাতে প্রবেশ করুক আবার তোমাদেরকে তোমাদের পছন্দের খাবার দিক, তবে আমি তাতে অপারগ। তিনি তাঁর দেশ শাসনের এমন দৃষ্টান্ত দাঁড় করালেন যে মানুষ তাঁকে খোলাফায়ে রাশেদার অন্তর্ভুক্ত করে নিয়েছে। তাঁর জীবনে এই আমূল পরিবর্তন এসেছিল অনুভূতির পরিবর্তনের কারণে। তিনি একজন খলিফা হিসেবে তাঁর যে দায়িত্ব তা উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন।

অনুভূতি শূণ্য মুসলিম জাতি : সুতরাং উপলব্ধি জাগ্রত হলে মানুষের ভেতর পরিবর্তন আসবে। মুসলিম জাতির মধ্যে এই মুহূর্তে সবচেয়ে অভাব অনুভূতি, উপলব্ধি ও চেতনার। আমরা হতাশার সঙ্গে দেখছি, অন্যান্য জাতি-গোষ্ঠী নিজেদের এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে এবং তারা আপন লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে মুসলিম জাতির বিরুদ্ধে নানামুখী ষড়যন্ত্র হচ্ছে, তাদের জাগরণ দমিয়ে রাখতে বহু পরিকল্পনা কাজ করছে। সংবাদ মাধ্যমগুলোর ওপর দৃষ্টি রাখলে খুব সহজে তা চোখে পড়বে। অথচ মুসলিমদের ভেতর তা নিয়ে কোনো চিন্তা নেই। ফলে তা থেকে উত্তরণেরও পথ খোঁজে না। এর ব্যতিক্রমও যে নেই তা নয়।

একে  খন্দকার/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category