কাশ্মীরে এবার থেকে ভোট হবে এবং হবে উন্নয়নওঃ মোদী

বিপ্রদ্বীপ দাস, (হুগলি, কলকাতা, ভারত): এক নিমিষেই রাতারাতি জম্মু-কাশ্মীরের মানচিত্র ও মর্যাদা বদলে দিয়েছেন ঠিকই, কিন্তু তার পর ভূস্বর্গের যে পরিস্থিতি, তা বদলের প্রশ্নে তাড়াহুড়ো করতে রাজি নন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বৃহ;বার সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে বক্তৃতায় তিনি জানালেন, উপত্যকায় বদল হবে ‘ধীরে ধীরে।’

অলিতে-গলিতে সেনা মোতায়েন করে, বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের গৃহ  বন্দি রেখে যে পরিস্থিতি এখন কাশ্মীরে তৈরি হয়েছে, তা বদল করাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। কিভাবে সরকার সেই সমস্যার মোকাবিলা করবে, মোদীর কাছ থেকে সেই পথনির্দেশই প্রত্যাশা করেছিল গোটা দেশ। মোদী বললেন, জম্মু-কাশ্মীরে ভোট হবে, মানুষ নিজের বিধায়ক-মুখ্যমন্ত্রী পাবেন। ইদে বাড়ি ফেরার সুযোগ পাবেন প্রবাসী কাশ্মীরিরা। রোজগার হবে। হবে উন্নয়নও। আসবে বিনিয়োগ। সর্বোপরি রাজ্যের মর্যাদাও আবার ফিরে পাবে জম্মু-কাশ্মীর।

প্রায় চল্লিশ মিনিটের বক্তৃতায় মূল আবেদনটি ছিল জম্মু-কাশ্মীরের মানুষ যদি পাকিস্তানের ষড়যন্ত্র, বিচ্ছিন্নতাবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও পরিবারতন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান, তা হলে বদলে ‘যেতে পারে’ ভূস্বর্গের চেহারা। সেই বদল ঘটাতে বিরোধীদেরও পাশে থাকার আহ্বান জানান মোদী।

আজ প্রথমেই উপত্যকার পুলিশের উদ্দেশে বার্তা দেন মোদী। কেন্দ্রের সিদ্ধান্তে পুলিশের মধ্যে বিক্ষোভ, এমনকি সরকারের বিরুদ্ধে অস্ত্র হাতে তুলে নেওয়ার আশঙ্কা ছিল বলে গোয়েন্দারা রিপোর্ট দিয়েছিলেন অমিত শাহকে। সরকারি ভাবে অস্বীকার করলেও, সংসদে বিল পেশের আগে উপত্যকার স্পর্শকাতর থানাগুলির দায়িত্ব তাই আধাসেনার হাতে তুলে দেওয়া হয়। কিন্তু আধাসেনা সরে গেলে উপত্যকা ফের সামলাবে কাশ্মীর পুলিশই। তাই শুরুতেই পুলিশ কর্মীদের উদ্দেশে মোদী বলেন, অন্য কেন্দ্রশাসিত এলাকার মতোই আর্থিক সুবিধা পাবেন তাঁরা। এলটিসি থেকে শুরু করে সন্তানদের শিক্ষাখাতে টাকা দেওয়া হবে।

 

এম কে ইসলাম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category