আসামি ছাড়িয়ে নিতে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ, গোলাগুলি

কালের সংবাদ ডেস্কঃ নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় আসামি ধরাকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে জনতার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে পুলিশসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছে।

গতকাল শনিবার রাতে উপজেলার মদনপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে আজ রোববার বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজহারুল ইসলাম এ কথা জানান।

ওসি বলেন, ‘আসামি ধরাকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে আসামিপক্ষের সংর্ঘষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এ সময় তিন পুলিশ আহত হয়েছেন। পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন উপপরিদর্শক (এসআই) মোহাম্মদ আলী, কনস্টেবল দেবাশীষ ও মোহন। এ ছাড়া বাবু নামের এক যুবককে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ আরো জানায়, গতকাল রাতে মদনপুর এলাকায় নূর নবী ও রিফাত নামের দুজন যুবককে আটক করে পুলিশ। এ সময় স্থানীয় মেম্বার খলিলুর রহমানের লোকজন এসে পুলিশকে ঘিরে রাখে। তারা আটক দুজনকে ছাড়িয়ে নিতে চেষ্টা করে।

এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে হাতাহাতি হয়। এ সময় জনৈক আমির হোসেনের লোকজন পুলিশের পক্ষ নিলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। মেম্বার খলিলুর রহমান ও তাঁর পক্ষের লোকজন পুলিশকে ধাওয়া করলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ও ফাঁকা গুলি ছুড়তে থাকে।

এ সময় প্রতিপক্ষের লোকজনও গুলি করে বলে পুলিশের দাবি। দুই পক্ষের সংঘর্ষে বন্ধ হয়ে যায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যান চলাচল।

সংঘর্ষের সময় চানপুর এলাকার শহীদুল ইসলামের ছেলে গার্মেন্ট শ্রমিক আশিকুর রহমান গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন বলে এলাকায় খবর ছড়িয়ে পড়ে। তবে ওসি আজহারুল ইসলাম বলেছেন, তিনি এমনটা শুনেছেন।

সংঘর্ষের ঘটনার পর থেকে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

এনআই/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category