অনলাইনে ঈদ শপিং করুন করোনা সংক্রমণ থেকে দূরে থাকুন

অনলাইনে ঈদ শপিং, যেসব বিষয় না মানলেই বিপদ!

কালের সংবাদ অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসের কারণে পুরো বিশ্বের মানুষই ঘরবন্দী অবস্থায় রয়েছে! এদিকে রোজা শেষের দিকে চলে এলেও ঈদের আনন্দ যেন সবার কাছেই ম্লান হয়ে গিয়েছে। এজন্য কেনাকেটার ধুমও নেই! কারণ ঈদও তো কাটাতে হবে ঘরেই। কোথাও যাওয়ার উপায় নেই।

আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে এই সময় কেউই শপিং মলে যেতে পারছেন না ঠিকই, তবে অনেকেই অনলাইনে কেনাকাটা সারছেন। তবে জানেন কি? অনলাইন কেনাকাটাও এখন নিরাপদ নয়। তবে কিছু বিষয় মেনে আপনি অনলাইনে শপিং করে করোনা সংক্রমণ দূরে রাখতে পারেন।

দ্য ল্যানসেটে প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় বলা হয়েছে, স্টিল বা প্লাস্টিকে দুই থেকে তিন দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে এই মারণ ভাইরাস করোনা। এছাড়া কার্ডবোর্ডেও প্রায় ২৪ ঘণ্টা আয়ু এর। অনলাইনে কেনা জিনিস যা পার্সেল হিসেবে আসে।

তার সবই কার্ডবোর্ড বা প্লাস্টিকে মোড়ানো অবস্থাতেই আসে।এতে করেও কিন্তু আপনার অর্ডার দেয়া জিনিসের মাধ্যমেই বাড়িতে করোনাভাইরাস চলে আসতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে কি করবেন? মানতে হবে কয়েকটি বিষয়। জেনে নিন সেগুলো-

১. পার্সেল আসলে প্রথমেই উপরের প্যাকেট ফেলে দিন।

২. ভেতরের জিনিস এমনভাবে বের করুন যাতে হাতের স্পর্শ না লাগে।

৩. সম্ভব হলে পার্সেলে আসা জিনিস ভালোভাবে ধুয়ে নিন।

৪. পরে নিজের হাতও ভালো করে ধুয়ে নিন। ধোয়ার জন্য সাবান বা স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে পারেন।

৫. আরো ভালো হয় যদি কোনো পার্সেল এলে আপনি সেটি ধরতে গ্লাভস ব্যবহার করেন। তারপর সেই পার্সেলটিকে পরিষ্কার করে নিজের গ্লাভসটি ফেলে দিন।

৬. অনলাইন থেকে যদি কোনো পোশাক কিনে থাকেন, তবে তা ডেলিভারির পর সাবান পানি দিয়ে ধুয়ে রোদে শুকিয়ে নিন।

৭. বিভিন্ন জুয়েলারি বা কসমেটিক্সজাতীয় পণ্য কেনার পর তা স্যানিটাইজার দিয়ে পরিষ্কার করে নিন।

মনে রাখবেন, শরীরে অ্যালকহল বা ক্লোরিন স্প্রে করবেন না। শরীরে যেই ভাইরাস ঢুকে গেছে তা কোনোভাবেই ক্লোরিন বা অ্যালকহল ব্যবহার করলে মরে না।

তবে অ্যালকহল বা ক্লোরিন স্প্রে করে কোনো বস্তুকে স্বচ্ছ করে তুলতে পারেন। তাতে ভাইরাস ছড়ানো আটকানো যেতে পারে।

এস ইসলাম/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category