অতিরিক্ত রাগ হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়ায়

হেলথ ডেস্ক:

বিজ্ঞানীদের মতে, চণ্ডাল রাগ সরাসরি জখম করে হার্ট ও ধমণীকে৷ প্রবল রাগ ওঠামাত্র শরীরে শুরু হয় ফাইট অর ফ্লাইট রেসপন্স৷ তার হাত ধরে প্রচুর স্ট্রেস হরমোন তথা নিউরোকেমিক্যাল বেরোতে শুরু করে৷ তাদের প্রভাবে হার্টরেট ও প্রেশার বাড়ে৷ করোনারি আর্টারি সঙ্কুচিত হয়৷

আর একটি গবেষণা থেকে জানা গিয়েছে, শরীরে স্ট্রেস হরমোনের বাড়াবাড়ি হলে রক্তে সি–রিয়্যাকটিভ প্রোটিন বা সিআরপি বাড়তে শুরু করে৷ ২০০৪ সালে সাইকোসোমাটিক মেডিসিন–এ প্রকাশিত এক প্রবন্ধে ডিউক ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা ১২৭ জন সুস্থ নারী–পুরুষের উপর সমীক্ষা করে জানিয়েছেন, যাঁদের রাগ ও হোস্টিলিটি খুব বেশি বা যাঁরা কথায় কথায় টেন্সড বা ডিপ্রেস্ড হয়ে পড়েন, সাধারণ মানুষের তুলনায় তাঁদের রক্তে সিআরপি বেশি থাকার চান্স প্রায় দ্বিগুণ থেকে তিন গুণ, যা কিনা হার্ট অ্যাটাকের অন্যতম মার্কার৷

অ্যাঙ্গার ম্যানেজমেন্ট

(১) আপনার যে রাগ বেশি সেটা বুঝুন প্রথমে৷ এবং তার জন্য আপনি ছাড়া আর কেউ দায়ী নয়৷ কারণ যে ঘটনায় আপনি রেগে যান, তাতে অন্য অনেকেই দিব্যি মাথা ঠান্ডা রাখতে পারেন৷

(২) এ বার ঠিক করুন রাগ কমাবেন এবং প্রস্তুতি নিয়ে কাজে নেমে পড়ুন৷

(৩) কোন কোন ঘটনায় রেগে যান তা বুঝে নিন৷ সে রকম পরিস্থিতি যাতে না হয় সে চেষ্টা করুন৷ তার জন্য যদি নত হতে হয় সে-ও ভাল৷

(৪) নত হতে হয়েছে বলে যদি খারাপ লাগে, ভেবে দেখুন এর বিনিময়ে আপনার শরীর, মানসিক শান্তি, সম্পর্ক সবই কিন্তু রক্ষা পেল৷

(৫) চেষ্টা করেও পরিস্থিতি এড়াতে না পারলে প্রতিজ্ঞা করুন, যা-ই ঘটুক আপনি শুধু শুনে বা দেখে যাবেন, রাগবেন না৷ এমন কথা বলবেন না যাতে পরিস্থিতি জটিল হয়৷

(৬) চেষ্টা বিফলে গেলে অস্থির হবেন না৷ অন্য ইমোশনের মতো রাগও খানিক ক্ষণের মধ্যে কমতে শুরু করবে৷ ধৈর্য ধরুন৷ মুখ বন্ধ রাখুন৷ সম্ভব হলে সে জায়গা থেকে সরে যান। হনহন করে হেঁটে আসুন, মাথায় জল ঢালুন কি ঘরের কাজ করুন বা কারও সঙ্গে কথা বলে মাথা ঠান্ডা করে নিন৷

(৭) এ সব কোনওটাই সম্ভব না হলে কাজে আসবে সুইচ অফ–সুইচ অন মেকানিজ্ম এবং ভিস্যুয়াল ইমেজারি৷ এ হল পরিস্থিতির মাঝখানে বসে গভীর ভাবে অন্য পছন্দের কিছু ভাবা যাতে মন চলে যায় অন্য কোনও রাজ্যে৷ বিশেষজ্ঞের কাছে শিখে ঘরে প্র্যাকটিস করলে বিপদের সময় কাজে লাগবে৷

(৮) ডিপ বেলি ব্রিদিং, যোগাসন, মেডিটেশনে শরীর–মন ঠান্ডা থাকে৷ চট করে রাগ ওঠে না৷ বা উঠলেও সহজে নেমে যায়৷ বিশেষজ্ঞের কাছে শিখে এদের জীবনের অঙ্গ করে নিন৷

(৯) মাত্রাছাড়া রাগের উত্তর হল কগনিটিভ বিহেভিয়ার থেরাপি৷ ভাল বিশেষজ্ঞের কাছে করালে কাজ হয় ম্যাজিকের মতো৷ নিজেও চেষ্টা করে দেখতে পারেন৷ যার প্রথম ধাপ নিজের মনকে বুঝে নেওয়া৷ যেমন,

(ক) আপনার চাহিদা কি খুব বেশি?

(খ) আপনার কি ইগো খুব বেশি? হতাশা বা দুঃখ এলে তা মানতে পারেন না? তাকে রাগ দিয়ে ঢেকে রাখেন?

(গ) জীবনে যা ঘটছে তাকে সহজ ভাবে মেনে নিতে পারেন না?

(ঘ) সমস্যা সমাধান করতে না পারলে রাগ হয়ে যায়?

(১০) এই চারটি প্রশ্নের মধ্যে লুকনো আছে রাগের কারণ৷ চাহিদা বেশি হলে তা না মিটলে রাগ হবে৷ ইগো বেশি হলে চাহিদা না মেটায় যে হতাশা বা দুঃখ হয় তা প্রকাশ করতে বা স্বীকার করতে লজ্জা হয়৷ ফলে তা চাপা পড়ে রাগের আড়ালে৷ প্রতিটি বিষয়কে বেশি গুরুত্ব দিলে হতাশা এবং দুঃখ আসার সম্ভাবনা প্রতি পদে৷ হতাশা এবং দুঃখ জমতে জমতে হয় তা রাগ হিসেবে দেখা দেয়, নয়তো ডিপ্রেশন আসে৷

সমস্যা সামনে, কী করব জানা নেই, এই অবস্থাতেও সঙ্গী হয় রাগ বা ডিপ্রেশন৷ এই সমস্যাগুলির মধ্যে কোনটা আপনার আছে ভেবে দেখুন৷ খুঁজে পেলে একটু ভাবনাচিন্তা করে তাদের সামলাতে হবে৷ প্রয়োজনে বিশেষজ্ঞের সাহায্য নিন।

 

এসএম/

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category